সহায়তার হাত বাড়ান, বাঁচবে ৪০ লাখ সিরীয় শরণার্থীর প্রাণ

সংকট যত ব্যাপক, সহায়তার প্রয়োজন ততটাই

($20) ১,৫৫০ টাকা দিয়ে মাটিতে ঘুমান এমন দুই পরিবারের জন্য সিনথেটিক ম্যাট সরবরাহ করা যায়
($20) বা মাত্র ১,৫৫০ টাকায় দুটি পরিবারকে মাটিতে ঘুমাতে হয়না। তারা পেতে পারেন সিনথেটিক ম্যাট।
($50) ৩,৮০০ টাকার গরম তাপ অপরিবাহী কম্বল একটি পরিবারকে রক্ষা করতে সাহায্য করে
($50) বা মাত্র ৩,৮০০ টাকার গরম কম্বল একটি পরিবারকে রক্ষা করতে পারে শীতের কবল থেকে।
($110) ৭,৭০০ টাকায় একটি পরিবারের রান্নার জন্য চুলা কেনা যায়
($110) বা মাত্র ৭,৭০০ টাকায় একটি পরিবার পেতে পারে রান্নার চুলা ।
($550) ৪২,৭০০  টাকার তাঁবুতে একটি পুরো পরিবার আশ্রয় নিতে পারে
($550) ৪২,৭০০  টাকার তাঁবুতে একটি পুরো পরিবার আশ্রয় নিতে পারে

কীভাবে সহায়তা করবেন?

বাংলাদেশ থেকে: স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক একাউন্ট নম্বর: 02-5625270-02; অ্যাকাউন্ট নাম: “UNHCR”; Source: “UNHCR Emergency Appeal”; Swift Code: “SCBLBDDX”

বিকাশ (bKash): আসছে


বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে: Syria Emergency Appeal

 

সিরীয় শরণার্থীদের অবস্থা

সিরিয়া একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের নাম । প্রায় পাঁচ বছর ধরে যুদ্ধের সাথে বসবাস করছে সিরিয়ার মানুষেরা। বোমার আঘাতে আজ বিধ্বস্ত সিরিয়ার ঘর-বাড়ি, স্কুল, হাসপাতাল সবকিছুই। এই যুদ্ধ কেড়ে নিয়েছে আড়াই লাখ মানুষের প্রাণ। লাখো সিরীয় শিশু শারীরিক এবং মানসিক অসুস্থতায় ভুগছে।

এক ঐতিহাসিক মানবিক সংকটের মুখোমুখি সিরীয়ানরা। প্রতিদিনই খারাপ থেকে আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে সিরিয়ার ভেতরের পরিস্থিতি । ৭৬ লাখ সিরীয় এরইমধ্যে হারিয়েছেন মাথাগুঁজার ঠাঁইটুকু। যার ৪৫ লাখ মানুষের কাছে কখনোই পৌঁছানো যায়না।

পাশের দেশ তুর্কি, লেবানন, জর্ডান, ইরাক ও মিশরে আশ্রয় নিয়েছেন ৪০ লাখ সিরীয় শরণার্থীর অধিকাংশই । যুদ্ধ থামার কোন লক্ষণ না থাকায় এই শরণার্থীদের দেশে ফেরা অনিশ্চিত। আবার আশ্রয় দেয়া প্রতিবেশী দেশগুলোকে বছরের পর বছর শরণার্থীদের চাপ সামলাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছেআন্তর্জাতিক সহায়তার আহ্বানে পর্যাপ্ত সাড়া না থাকায় দেশগুলোর অর্থনীতি, অবকাঠামো কোনটাই এই পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নিতে পারছেনা। ফলে শরণার্থীদের জন্য কর্মসংস্থান, আশ্রয়, স্বাস্থ্যসেবা ও শিক্ষা পাওয়া ক্রমশ কঠিন হয়ে দাড়িয়েছে

বোমা আর গুলি থেকে বাঁচতে প্রাণভয়ে সিরীয়রা আজ ছুটছেন নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে। সিরিয়ার নাগরিকদের প্রাণ বাঁচানোর তাগিদ হার মানিয়েছে উত্তাল সাগরের ঢেউকেও। শরণার্থী নারী,পুরুষ, শিশুদের অনেকেই পাড়ি দিচ্ছেন ভূমধ্যসাগরনৌকায় সাগর পার হতে গিয়ে প্রাণ হারাচ্ছেন অনেকেইসাগরের ঢেউয়ের সাথে প্রতিনিয়তই ভেসে আসছে মানব পাচারকারীদের নিষ্ঠুরতা, প্রতারণা আর হতভাগ্য মানুষের আর্তচিৎকার

গ্রিসে সীমিত অবকাঠামোর কারণে, সেখানেও মিলছে না প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা। শরণার্থী এবং অভিবাসীদের যাত্রা তাই ম্যাসেডোনিয়া এবং সার্বিয়া হয়ে হাঙ্গেরির পথে। কাঁটাতারের বাইরে এখন লাখো সিরীয় শরণার্থী। জীবন হাতের মুঠোয় নিয়ে এই মানুষগুলো খেয়ে না খেয়ে খুঁজছেন ইউরোপে ঢোকার পথ

কিন্তু, যুদ্ধ থামে না।

UNHCR-এর ভূমিকা

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা-ইউএনএইচসিআর (UNHCR) সিরীয় শরণার্থীদের মৌলিক ও প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা দিয়ে আসছে। বেশি ঝূঁকিতে থাকা শরণার্থীদের জরুরী ভিত্তিতে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়। যেমন ঔষধ ও খাদ্যের জন্য নগদ অর্থ, গরম করবার চুলা ও জ্বালানী, তাপ নিরোধক তাবু, উষ্ণ কম্বল ও শীতকালীন পোশাক দিয়ে সহায়তা করে ইউএনএইচসিআর।

সিরিয়ার প্রতিবেশি অঞ্চলগুলোতে শরণার্থীদের প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে পাড়লে মানব পাচারকারীদের হাত থেকেও অনেক হতাশ সিরীয় শরণার্থীকে বাঁচানো সম্ভব হবে, এমনই আশা করে ইউএনএইচসিআর

সাহায্যকারীদের আন্তরিক ধন্যবাদ। আপনাদের সহায়তায় এই বছর জানুয়ারি থেকে ১৮ লাখ শরণার্থী খাদ্য পেয়েছে, ৫ লাখ শিশু স্কুলে যাচ্ছে, আর ৪ লাখ ৬০ হাজারেরও বেশি মানুষ আশ্রয় পেয়েছে শরণার্থী শিবিরে।

পাশাপাশি, বিশ্বজুড়ে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতির মূল কারণ মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে উদ্যোগী হতে বলে আসছে জাতিসংঘ।  

Advertisements

5 thoughts on “শরণার্থীদের পাশে আমরা

    1. Thank you for your interest Mr. Chowdhury. UNHCR was established in 1950 with the mandate to lead and co-ordinate international action to protect refugees and resolve refugee problems worldwide. We work in 123 countries all over the world. Our primary purpose is to safeguard the rights and well-being of refugees so that individuals can seek asylum and find safe refuge in another state when they are facing systematic persecution or have a well-founded fear for their lives.

      As the Mediterranean crisis has spread far beyond Syria, and to other continents, UNHCR has now taken a regional initiative titled the Special Mediterranean Initiative (SMI); you can find more details here – http://reporting.unhcr.org/node/9918.

      UNHCR needs a total of USD 128 million for the Special Mediterranean Initiative up to the end of 2016. The donations are now being collected locally by UNHCR Bangladesh also, in our Standard Chartered Bank account. The funds will be linked directly to SMI through our headquarters financial management, and then be disbursed by UNHCR Headquarter to each region to help the population of 4 million refugees survive who are spread across Middle East and North Africa (MENA), Europe and Africa.

      To answer your second question – the humanitarian aid that UNHCR offers are the ones that are best suited to the particular protection needs of the refugees, where each situation is always unique to its particular context. UNHCR’s technical expertise is in providing protection and assistance in emergencies and we are providing what is deemed as the most essential humanitarian needs that protect, at a minimum, the ‘right to life’ and dignity. There are minimum standards for humanitarian aid delivery, known as SPHERE (http://www.sphereproject.org/handbook/). All aid in emergencies is guided and prioritized according to SPHERE. Protection is sometimes confused with ‘security’. However, at UNHCR we understand protection as “protection of one’s fundamental rights”. This is what we seek to offer to the refugees, and we thank you for your interest in being a part of it.

      Like

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s